https://comcitybd.com/brand/Havit

তিন দিনের ধর্মঘটে স্যামসাংয়ের কর্মীরা

তিন দিনের ধর্মঘটে স্যামসাংয়ের কর্মীরা তিন দিনের ধর্মঘটে স্যামসাংয়ের কর্মীরা
 
ইলেকট্রনিক্স এবং স্মার্টফোন উৎপাদনকারী বিশ্বের অন্যতম প্রধান কোম্পানি স্যামসাং এখন নানা সমস্যায় জেরবার। দক্ষিণ কোরিয়ার এই সংস্থায় হাজার হাজার কর্মী বর্তমানে ধর্মঘট ডেকেছে।

গতকাল সোমবার থেকেই চলছে এই ধর্মঘট। স্যামসাং ইলেকট্রনিক্স সংস্থার ৫৫ বছরের ইতিহাসে এই প্রথম এত বড় আকারের ধর্মঘট ডাকল স্যামসাংয়ের কর্মীরা।  

৫৫ বছরের ইতিহাসে সবথেকে বড় ধর্মঘট। বিভিন্ন দাবিতে স্যামসাংয়ের কর্মীরা ধর্মঘট করেছেন। এর আগে জুন মাসেও ১ দিনের জন্য ধর্মঘট ডেকেছিলেন স্যামসাংয়ের কর্মীরা।

আর তাদের দাবিতে রাজি না হওয়ায় এই বিষয়টি আরও বড়সড় আকার ধারণ করে। ফলে আবার নতুন করে ধর্মঘটে সামিল কর্মীরা।

এবারে ৩ দিনের ধর্মঘটে সামিল হয়েছে কর্মীরা। স্যামসাং সংস্থার ৫৫ বছরের ইতিহাসে এটি সবথেকে বড় ধর্মঘট হিসেবে দেখা যাচ্ছে।
কর্মীদের এই ধর্মঘট স্যামসাংয়ের সেমিকন্ডাক্টর চিপ উৎপাদন প্রক্রিয়াকে প্রভাবিত করতে পারে। স্যামসাংয়ের কর্মচারীরা কোম্পানির সবথেকে উন্নত চিপের উৎপাদন প্রক্রিয়া ব্যাহত হতে পারে কর্মীদের এই ধর্মঘটে। 

চিপ উৎপাদন ব্যাহত হবে 
ইউনিয়নের লক্ষ্য হোয়াসিয়ং অঞ্চলে স্যামসাংয়ের সেমিকন্ডাকটর প্ল্যান্টের বাইরে ৫ হাজার লোক জমায়েত করা। এই লক্ষ্য সম্পূর্ণ হয়েছে।

এখনও কতজন কর্মী চাকরি ছাড়তে চলেছেন, তা জানা যায়নি। আর এই তিনদিনের ধর্মঘটের কারণে চিপ উৎপাদন ব্যাপকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হতে পারে।  

কী নিয়ে ক্ষুব্ধ স্যামসাংয়ের কর্মীরা 
স্যামসাংয়ের কর্মীরা মূলত তাদের বেতন ও ছুটির দিন নিয়ে ক্ষুব্ধ। স্যামসাংয়ের ন্যাশনাল ট্রেড ইউনিয়নের ২৮ হাজারেরও বেশি সদস্য কর্মী জানিয়েছেন যে বেতন স্কেল নিয়ে বহু আলোচনা হলেও তাঁর কোনও সমাধান পাওয়া যায়নি।

গত বছর চিপ ইউনিটে কর্মরত ব্যক্তিদের ব্যবসায় লোকসান দেখিয়ে বোনাস দেওয়া হয়নি। ফলে ক্ষোভের মূলে এই কারণও রয়েছে।







০ টি মন্তব্য



মতামত দিন

আপনি লগ ইন অবস্থায় নেই।
আপনার মতামতটি দেওয়ার জন্য লগ ইন করুন। যদি রেজিষ্ট্রেশন করা না থাকে প্রথমে রেজিষ্ট্রেশন করুন।







পাসওয়ার্ড ভুলে গেছেন? পুনরায় রিসেট করুন






রিভিউ

আপনি লগ ইন অবস্থায় নেই।
আপনার রিভিউ দেওয়ার জন্য লগ ইন করুন। যদি রেজিষ্ট্রেশন করা না থাকে প্রথমে রেজিষ্ট্রেশন করুন।